“বন মর্মরের চিঠি-৪” লিখেছেন মুসা কামাল ।

4
860

মঈন ,
আজ সকালে উঠেই তোকে নিয়ে লিখতে বসেছি ।
আজ তোর” ডুব”দেবার এক মাস পূর্ণ হোল ।
তোর সাথে আমার অনেক স্মৃতি ।
অনেক ভাল লাগার দিন ক্ষন ।
বলতে পারিস পাশাপাশি চলার ছন্দ আছে অনেক ।
আর তা জীবনের অনেক শাখায় !
মনে পরে —
তুই আমাকে প্রায়শই সম্বোধন করতি ” গিলটি মিয়া” বলে !
মাসুদ রানার মত ” চাচা” বলে ডেকেই চলতি !
কি জানি উপন্যাস মাসুদ রানার সেই গিলটি মিয়ার সাথে কি মিল খুঁজে পেয়েছিলি আমার মাঝে !
তোর তো আবার দেখার অনেক গুলো চোখ ছিল !
আমরা জানতাম ।
আমাদের মনে হয় তোর অনেক কিছুই জানার আগ্রহ ছিল ।
এখন তো তাই মনে হয় রে মঈন !
জানতে চাইতাম হয়তবা !
কিন্তু হয়নি । সাধ আর সাধ্য বলেই কথা ।
তুই তো আমার সেই সাধ পুরনের সাধ্যই দিলি না ।
আর তাই সাধ্য তো পুরন হোলই না ।
এ সময় গুলোতে আমাদের আর এক প্রিয় বন্ধু রুদ্র হাসতো ।
আমরা সে সময় তিন হরিহর আত্মা ছিলাম বোধ করি ( ১৯৮১-২০২১) । ( কল্যানপুরের দিন গুলো।)
এখনো আছি । নয় কেন?
রুদ্র খুব ভাল লিখছে রে ! তোকে দেবার মতো একটা খবর বটে ।
নন্দিনী সাবরিনা খান তো এক্সসেলেন্ট !
আবদুল হাকিম তো লিখেই চলেছেন ।
রুদ্র কিন্তু এখন লেখক হয়েই গেল ।
মর্ডান বিমানের বৈমানিক আবার লেখক!!!
তাঁকে কি আমি লেখার জগতে নিয়ে এলাম?
একদিন বলবো সে কথা !

।।নিউইর্য়কের ম্যানহাটনের পার্ক হোটেল।।

তোর মনে আছে কি মঈন একদিন নিউ ইয়র্কের কথা ?
আমরা সে সময় ম্যানহাটনের সেভেন্থ এভিনিউয়ের পার্ক হোটেলে অবস্থান করছিলাম ।
সে সময় আমরা দুটো সেট Crew স্টে করতাম নিউ ইয়র্কে । আমার তো সে রকমই মনে পড়ছে ।
সে অনেক পূর্বের কথা । তাও ১৯৯২/৯৩ তো হবেই ।
হঠাৎ তোর সাথে দেখা । তুই মনে হয় অন্য সেটে এসেছিলি ।
আমার একটা গান মনে পড়লো মঈন –দেখা হয়েছিলো তোমাতে আমাতে কি জানি কি মহা লগনে — !
হা সে রকমই – তোর দেখা পেয়ে বেশ আবেগ আপ্লূত হয়েছিলাম – মনে পড়ে !

আমরা দুজনে কাছেই ম্যাকডোনাল্ডের দিকে চলছিলাম ।
সে সময় ম্যাকডোনাল্ড ঘোড়ার মাংস দিয়ে বার্গার বিক্রি করে বলে অনেক বিতর্ক চলছিল ।
তুই তো প্রথমে ম্যাক খাবিই না ।
আমি বলে কয়ে তোকে রাজি করালাম ।
তুই রাজি হয়েছিলি বটে তবে ফিলে অব ফিশ খাবি বলে জানিয়ে দিলি ।
তোর উপর তো আমাদের কথা চলতোই না । অগত্যা মধুসুধন —-
চললাম ম্যাক এর দিকে পদব্রজে । কাছেই বড় এক ম্যাক ।
অদ্ভুত এক শহর নিউইয়র্ক ।
এক্সট্রিম সে শহর ।
শীতে পরে তুষার । তুষার জমে জমে বরফের পাহাড় জমে যায় ।
সেই বরফ সরাতে সিটি কর্পোরেশন ফি বৎসরে লাখ লাখ ডলারের লবন কিনে থাকে !
সেই লবন ছিটিয়ে জমে থাকা তুষার হটানোর প্রোগ্রাম নেয় তারা ফি বৎসর ।
আবার গ্রীষ্মে গরমই গরম । কাপড় চোপড় শরীরে রাখা দায় ।
অদ্ভুত এক শহর !
কালো সাদা,হিউমেন রাইটস,ব্যবসা,বাণিজ্য আর জীবন — কি নেই সে শহরে ?
এখানে স্বাধীনতা অনেক উপভোগ করার মত এক বিষয় ।
এখানে নিজের জাতীয় পতাকা উড়াতে কোন আইন মানতে হয় না ।
বুক ফুলিয়ে বলতে হয়–এ পতাকা আমার পতাকা ।
ভাগ্য অন্বেষণের এক অপূর্ব সংমিশ্রণ ।
আমরা যখন রাস্তার পাশ দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলাম তখন আমাদের পাশ দিয়ে জোড়ে হেঁটে সামনে চলে গেল এক কৃষ্ণাঙ্গ যুবক ।
কাঁধে তার ইয়া বড় এক ক্যাসেট প্লেয়ার ।
সজোরে তাতে গান চলছে ।
বলছিলাম এখানে স্বাধীনতা অনেক উপভোগ করার মত এক বিষয় ।
আমাদের আলোচনাও সে লাইনে ছিল ।
( তখন তো আর এখনকার মত HD , DVD ছিল না ।)
হটাৎ কি এমন গান বেজে উঠলো কে জানে ?
তরিঘড়ি করে সেই কৃষ্ণাঙ্গ যুবক রাস্তার পাশেই নিরাপদ স্থানে ক্যাসেট প্লেয়ারটি রেখে
আমাদের সামনেই শুরু করে দিল —নৃত্য – হায়রে নৃত্য ।
নৃত্য বললে বুঝিবা ভুল হবে । বলতে হবে হায়রে ড্যান্স ।
তখন তো স্যাটারডে নাইট ফিভারের যুগ! জন ট্রাভোল্টা দের নাচ দেখে তুই শুধু হাসতি!
সেদিন নেচেই জীবনের জয়গান গাইছিল সেই কৃষ্ণাঙ্গ যুবক !
তুই লাফ দিয়ে এক পাশে সরে গেলি ।আমি তোর দিকে তাকালাম ।
তোর সেই প্রিয় মুচকি হাসিটা দেখি তোর মুখে ।
কৃষ্ণাঙ্গ যুবক কতক্ষন নেচেছিল জানি না !
তবে আমরা পেরিয়ে এলাম তাকে ।
আমরা কথা বলছিলাম সেদিন – জীবনের এই জয়গান নিয়ে ।
এগিয়ে গিয়েছিলাম সামনের পথ বেয়ে ।

# মঈন বিন নাসির ওরফে মাইনুল ইসলাম #

চলছিলাম তো ভালোই , কোথায় ডুব দিলি কে জানে ?
এমন আচমকাই ? তাও আবার এমন না বলে কয়ে !!
ওখানে বসে কি দেখছিস মঈন ??

মুসা কামাল ।
( জি এম বীন হোসেন কামাল।)
সম্পাদক, হ্যালো জনতা ডট কম ।
লেখক মঈন বিন নাসিরের ( মাইনুল ইসলাম) বন্ধু ।
মঈন বিন নাসির গত ৪/৩/২০২১ তারিখে ইন্তেকাল করেন ।

# হ্যালো জনতা প্রেজেন্ট’স #

# ৪/৪/২১ প্রকাশিত হোল মুসা কামালের — বন মর্মরের চিঠি – ৪ ।।
<## প্রিয় লেখক,বন্ধু মাইনুল ইসলাম ওরফে মঈন বিন নাসিরের ইন্তেকালে হ্যালো জনতা গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করছে । # আজ থেকে আবার শুরু হতে যাচ্ছে আমাদের জনপ্রিয় শো -- " রাত দশ টার শো " । # মঙ্গলবার— কানাডা থেকে লিখেন – নন্দিনী সাবরিনা খান ।
# বুধবার— “ভ্রমন”পড়ুন।। লেখক মুহাম্মদ মনসুরুল আজম,খসরু খান এবং অন্যান্য লেখক রা লিখেন এখানে — । ~~~
# বৃহস্পতিবার — শুক্রবারের রান্নাঘর প্রকাশিত হয় বৃহস্পতিবার –লিখেন ফিরোজা বেগম লুনা । ~~~~
# শুক্র বার-” বৈমানিকের পাণ্ডুলিপি” লিখেন বাঙ্গালি বৈমানিক”রেহমান রুদ্র”। শুক্রবার পাবেন অন্য আমেজের লেখা ।
# শনিবার—আমেরিকার বাল্টিমোর থেকে ধারাবাহিক লিখেন লেখক আবদুল হাকিম। তিনি লিখবেন তাঁর নিজস্ব বানান রীতিতে । প্রতি শনিবার ।এ ছাড়াও তাঁর রয়েছে বিভিন্ন লেখা সারা সপ্তাহ জুড়েই ।
# রবিবার— ” রবিবাসরীয় কবিতা” পাবেন প্রতি রবিবার । এখানে লেখক মাহবুবা ছন্দা,মেহের সরকার,আবদুল হাকিম, তাসলিম_তামিম, নিয়মিত লেখেন আর লিখবেন ।
# কলামিস্ট ও লেখক দেওয়ান মাবুদ আহমেদ লিখেন এখানে হরহামেশাই ।
# সাহিত্য পেজে পাবেন প্রখ্যাত লেখক এবং সাংবাদিক,সংগঠক দন্ত্যস রওশন এর নতুন অনুকাব্য । ~~~

# হ্যালো জনতা ডট কম পোর্টালে সংযত ভাবেই খবর বা লেখা প্রকাশিত হয় । ফেক নিউজ বা চিত্তাকর্ষক পদবি যুক্ত নাম সর্বস্ব খবর –
এ সমস্ত বিষয়ে অতিমাত্রায় সতর্কতা এবং গুরুত্ব দেওয়া হয় আমাদের সম্মানিত নির্ধারিত লেখকদের লেখনিকে #
# প্রচ্ছদে ক্লিক দিয়ে আমাদের পোর্টালের Sabscribe option খুজে নিন । সেখানে আপনার মেইল ঠিকানা লিখে, আপনার মেইলে কনফার্ম করুন– Confirm your Subscribtion এ ক্লিক দিন,না পেলে জাঙ্ক এ দেখুন । পর্যায় ক্রমে সব শুরু হবে । ##
### আপনি আমাদের পোর্টালটি সহজেই পাওয়ার সুবিধার্থে গুগল প্লে থেকে আমাদের – hellojanata.com APP টি নামিয়ে নিতে পারেন। লিঙ্ক —

https://play.google.com/store/apps/details?id=hello.janata&hl=en&gl=US

# একটি হ্যালো জনতা ডট কম প্রেজেন্টেশন #

4 COMMENTS

  1. মইন ভাই কে নিয়ে এতো গুলো শব্দ সাজানো কঠিন এক কাজ …… নিউইয়র্ক ঘুরে এলাম আমিও … সত্যি ই স্বাধীনতা । নর্থ এমেরিকায় না গেলে বোঝা যেতো না জীবন অনেক বড় … তার চেয়েও বড় অবারিত নীল আকাশ …… মইন ভাই ভালো থাকুক আকাশের ঠিকানায় ।
    বন মর্মরের চিঠি চলুক … শুভ কামনা

    • আসলেই কঠিনতম এক কাজ । ঠিকই ধরেছেন । তবে আবার লিখবো ইনশাল্লাহ । ধন্যবাদ ।
      সম্পাদক ।।

  2. I had to stop few times while reading to check obvious emotions. You’re right. Three of us, thousand memories and years we walk through together….very true.
    My heart ache telling me
    “No farewell words were spoken
    No time to say goodbye…..”
    He just left as if he had an emergency call!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here