আমেরিকার বাল্টিমোর থেকে ” সব পেয়েছির দেশে “১” ধারাবাহিক লিখছেন লেখক আবদুল হাকিম।

1
26

# সব পেয়েছির দেশে #

প্রথম আমেরিকায় এসে উঠেছিলাম টেক্সাসে । মেজভাইয়ের বাড়িতে । সেই ২০০৩ সালে । – এক শুক্রবারে জুম্মায় গেলাম মেজভাইয়ের সাথে । চকচকে মসৃন রাস্তা ধরে একটু পরেই পৌঁছে গেলাম সুগারল্যান্ড মসজিদে । ভারি সুন্দর মসজিদ । বেশ গাম্ভির্যপুর্ন । বেশ একটা উৎসব উৎসব ভাব । মহিলা আর বাচ্চাদের উপস্থিতি চোখে পড়ারই মত । ওরাই মনে হল মুখ্য । বাঙলাদেশে ঢাকা নিউমার্কেট মসজিদে দোতালার সিঁড়ির ডান পাসেই মহিলাদের জন্য নির্ধারিত ছোট্ট একটি ঘর । সহধর্মিনিকে ওখানে পৌঁছে দিয়ে উপরে উঠে গিয়েছি বেস কয়েকবার । কিন্তু জুম্মার নামাজে মহিলাদের এত সমাগম হয়, আমার ধারনা ছিল না । তা গেটদিয়ে ঢুকতেই ডান পাসে খুব সুন্দর ওজুখানা । সারিসারি মুসল্লি ওজুতে ব্যাস্ত । বিভিন্ন দেশের মানুষ এক সাথে ওজু করে চলেছেন । আমিও বসে পড়লাম । ওজু করতে করতেই আমার চক্ষু চড়কগাছ । সামনের রাস্তার ওপারে তাকিয়েই আমার চোখদুটো স্থির হয়ে গেল । আমি হা করে তাকিয়ে রইলাম কিছুক্ষন । সামনের রাস্তাটা খুব একটা চওড়া না । একটা করে গাড়ি যাওয়া আসা করতে পারে । মাঝখানে হলুদ লাইন । আমি হতভম্ব অবস্থাতেই ওজু সেরে উঠে দেখি মেজভাই আমার দিকে তাকিয়ে মিটিমিটি হাসছেন । তারপর বললেন – মন্দির । ওখানে নিয়মিত পুজো হয় । এবার আমার আর সন্দেহ রইল না । একেবারে মুখোমুখি অবস্থান । ছোট্ট রাস্তাটার এপাসে মসজিদ । ওপাসে মন্দির । গেটের নকসা, দিজাইন দেখে সহজেই বোঝা যায় ওটা একটা মন্দির । ভিতরে মন্দির ভবনের কিছু অঙশও দেখা যায় । একটু এগিয়ে উকি দিলেই মনে হয় প্রতিমাও দেখা যাবে । ধুতি পরা একজনকে দেখা গেল খাবারের প্যাকেট হাতে ভিতরে যেতে ।

ইমাম সাহেব মুল্যবান আলোচনা করে চলেছেন । নতুন কিছু না । বরাবর যা সুনে আসছি, আজ এখানেও তাই । কিন্তু আমার মাথার ভিতর থেকে ওই মন্দিরের ব্যাপারটা যাচ্ছেই না । মসজিদ আর মন্দির এত কাছাকাছি, একেবারে মুখোমুখি হতে পারে ভাবাই যায় না । উপসনার সময় ভিন্ন হলেও আজানের ধ্বনি ওই মন্দিরে গিয়ে যেমন আছড়ে পড়বে, তেমনি মন্দির থেকেও শঙ্খধ্বনি বা উলুধ্বনিও মসজিদের ভিতর এসে পৌঁছে যাবে । আমাদের দেশে আমরা কখনো এমনটি দেখিনি । ভাবিওনি । আমরা জন্মাবধি দেখে আসছি, শুনে আসছি এই দুটো উপাসনালয়ের ভিতর খটাখটি, ঝগড়াঝাঁটি, কাদা ছোড়াছুড়ি, মারামারি, প্রতিমা ভাঙা, মসজিদ ভাঙা লেগেই থাকে ।

এখানে যারা মুসল্লি হিসেবে আজ উপস্থিত আছেন তাদের ভিতর মনে হচ্ছে প্রায় নব্বই ভাগ’ই বাঙলাদেশ ভারত বা পাকিস্তানি । আরও কিছু আছেন আফ্রিকান । ইসলাম ধর্ম বিশ্বের সব জায়গাতেই এক । ইমাম সাহেব এখানে যা বয়ান করে চলেছেন তাও দেশে থাকতে অগনিতবার শুনেছি । তাহলে ? ধর্মিয় নিষেধাজ্ঞা থাকলে এমন সহবস্থান’তো সম্ভব না । যারা উদ্যোগ নিয়ে এই দুটি উপাসনালয় গড়ে তুলেছেন, তারা নিশ্চয়ই ভালোভাবে জেনেশুনে বুঝেশুনেই কাজটি করেছেন । আমাদের দেশে, তথা সমগ্র উপমহাদেশে মসজিদ মন্দির নিয়ে এতো হানাহানি, এত ভাঙাভাঙি ; আর এখানে সহবস্থান ? কি’ভাবে সম্ভব ? আমাদের দেশে এমনটি কখনো কি সম্ভব ? হিন্দু মুসলমান উভয়ই’তো প্রধানত আমাদের উপমহাদেশ থেকেই এদেশে এসেছেন । দুই তিন দিনের পথযাত্রায় হুট করে এমন পরিবর্তন ! ভাবা যায় ? যারা দেশে উপাসনালয় ভাঙাভাঙির কাজে নিয়োজিত থাকেন, তারা এদেশে এলেও কি ওই কাজ করবেন ? মনে হয় না । তা’হলে মুল সমস্যাটা কি ধর্ম সঙক্রান্ত, না অন্য কোথাও ? যদি সমস্যা অন্য কোথাও থেকে থাকে তা থেকে আমরা পরিত্রান পাচ্ছিনা কেন ? – ( চলবে )

( লেখাটিতে ঈ ঊ ন ং এই চারটি অক্ষর ব্যবহার করা হয়নি। লেখক লিখেন তাঁর নিজস্ব বানান রীতিতে ।। )

# ” সব পেয়েছির দেশে “১”–আমেরিকার বাল্টিমোর থেকে ধারাবাহিক লিখছেন লেখক আবদুল হাকিম। প্রতি শনিবার লেখক এখানে লিখবেন ।

——
# আপনাদের আরো পড়ার সুবিধার্থে আমাদের hellojanata APP ডাউন লোড করে নিন গুগল প্লে থেকে ।
Android Apps Link:-

https://play.google.com/store/apps/details?id=hello.janata&hl=en&gl=US
———–
এছাড়াও –
# প্রতিদিন “বাঙালির জাতীয়তাবাদী সংগ্রাম মুক্তিযুদ্ধে চট্টগ্রাম -লেখক বীর মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ মাহফুজুর রহমান” পড়ুন ।।

প্রতি বুধবার “ভ্রমন”পড়ুন।। এ সপ্তাহে প্রকাশিত লেখক মুহাম্মদ মনসুরুল আজম এর ” রং টার্ন !!! ওয়ে টু থানচি বান্দরবান “ চলমান~~ আমাদের দেশের খাসিয়া উপজাতি ও ইন্দোনেশিয়ার মানুষ নিয়ে- লিখেছেন খসরু খান । ~~~
# শুক্রবারের রান্নাঘরে,প্রকাশিত হয় বৃহস্পতিবার –এ সপ্তাহে লিখেছেন ফিরোজা বেগম ” লাউের মালাইকারী ” ।। চলমান ~~~~
# শুক্র বারে ” বৈমানিকের পাণ্ডুলিপি” লিখেন বাঙ্গালি বৈমানিক”রেহমান রুদ্র”।”
বৈমানিকের মনে কি খেলা করে।”বৈমানিকের পাণ্ডুলিপি” পর্ব ১৩ । লেখা প্রকাশিত ।

# আজ শনিবার আমেরিকার বাল্টিমোর থেকে ” সব পেয়েছির দেশে ” লিখবেন লেখক আবদুল হাকিম। তিনি লিখবেন তাঁর নিজস্ব বানান রীতিতে । প্রতি শনিবার ।

কলামিস্ট ও লেখক দেওয়ান মাবুদ আহমেদের — দুবলহাটি রাজবাড়ি, নওগাঁ — চলমান —

সাহিত্য পেজে পাবেন প্রখ্যাত লেখক এবং সাংবাদিক,সংগঠক দন্ত্যস রওশন এর ১২ টি নতুন অনুকাব্য ।।চলমান~~~

# — এ ছাড়া ” রবিবাসরীয় কবিতা” পাবেন প্রতি রবিবার ।।এ সপ্তাহে “কবি তানজিম_তানিম এর তিনটি কবিতা” প্রকাশিত হয়েছে।
# আসছে ২৬শে মার্চ, স্বাধীনতা দিবসে প্রকাশিত হবে ” মাহবুবা ছন্দার” একটি জীবন ঘেঁষা ছোট গল্প–“দুঃখ রাতের গান” । মনে করিয়ে দেবে একাত্তুরের দিনগুলো ।

# সামনেই যে লেখকরা তাঁদের লেখা আমাদের এখানে নিয়মিত দেবেন বলে কথা দিয়েছেন তাঁরা হলেন — মঈন বিন নাসির , নন্দিনী সাবরিনা খান (কানাডা থেকে)। আমরা তাঁদের স্বাগত জানাই । ।

# একটি হ্যালোজনতা প্রেজেন্টেশন #

।। হ্যালো জনতা.কম ।।

নুপুর ।।

1 COMMENT

  1. সুন্দর হয়েছে । সম্পাদক জনাব কামাল হোসেন সাহেবকে আন্তরিক ধন্যবাদ ।

    আবদুল হাকিম ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here